• ডায়াল ১৬৬২২ (২৪/৭)
  • ক্ষুদ্র বীমা

    ক্ষুদ্র বীমা

    ক্ষুদ্রবীমা ক্ষুদ্রঋণ গ্রহীতাদের জন্য এক আনুষ্ঠানিক ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা যা ঋণ গ্রহীতাদের ঋণ সংক্রান্ত সম্ভাব্য আর্থিক ঝুঁকি থেকে রক্ষা করে।অত্যন্ত সাশ্রয়ী প্রিমিয়ামের বিনিময়ে নিম্ন আয়ের জনগণকে আর্থিক ঝুঁকি থেকে সুরক্ষা নিশ্চিত করার জন্য গার্ডিয়ান লাইফের ক্ষুদ্রবীমা পরিকল্পনা বিশেষভাবে তৈরি করা হয়েছে। সাধারণত, অধিক প্রিমিয়ামের কারণে গতানুগতিক বীমা পরিকল্পনা সমূহ অনেকের পক্ষেই গ্রহণ করা সম্ভব হয় না। গার্ডিয়ান লাইফের এর ক্ষুদ্র বীমা নিম্ন আয়ের মানুষকেও বীমা পরিসেবা উপভোগ করার সুযোগ করে দিচ্ছে।

    বাংলাদেশ এখন একটি উন্নয়নশীল রাষ্ট্র। এই উন্নয়নশীলতার ধারাবাহিকতা রক্ষার্থে ক্ষুদ্রবীমা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। ক্ষুদ্রবীমা প্রান্তিক জনগণের আর্থিক অন্তর্ভুক্তি নিশ্চিত করে অর্থনৈতিক ভাবে দুর্বল জনগনের জীবন যাত্রার মান উন্নয়নের মাধ্যমে দেশের টেকসই অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে।

    ক্ষুদ্র বীমা কেন?

    যেহেতু প্রান্তিক জনগণের কর্মসংস্থানের সুযোগ সীমিত, তাই দরিদ্র পরিবারগুলো কোন অপ্রত্যাশিত ঘটনার মুখোমুখি হলে ভয়াবহ আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয়। পরিবারের উপার্যনশীল ব্যক্তির মৃত্যু তার পরিবারকে মারাত্মক আর্থিক দুরবস্থায় ফেলে দেয়। অনেক সময় মৃত ব্যক্তির অন্ত্যষ্টিক্রিয়া/দাফন কাফনের জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ জোগাড় করাও দরিদ্র পরিবারগুলোর জন্য কঠিন হয়ে পড়ে। পরবর্তীতে জীবন যাপনের জন্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি ক্রয় এবং সন্তানদের শিক্ষার জন্যও নগদ অর্থের প্রয়োজন। সব মিলিয়ে একটি দরিদ্র পরিবারের উপার্জনশীল ব্যক্তির মৃত্যু পুরো পরিবারের জন্য বিরাট আর্থিক বিড়ম্বনা ও ঝুঁকি সৃষ্টি করতে পারে। এমতাবস্থায় একটি ক্ষুদ্র বীমা এ রূপ ঝুঁকি এবং অনিশ্চিত ভবিষ্যতের হাত হতে পরিবারকে সুরক্ষা প্রদান করে।

    গার্ডিয়ান লাইফ ক্ষুদ্র বীমা

    গার্ডিয়ান লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ ক্ষুদ্রবিমাকারী (মাইক্রো ইন্স্যুরার) প্রতিষ্ঠান। বর্তমানে বিভিন্ন ক্ষুদ্রবীমা প্রকল্পের আওতায় গার্ডিয়ানের এক কোটিরও বেশি গ্রাহক রয়েছে। অন্যভাবে বলা যায় বাংলাদেশের প্রতি ১৭ জন জনগণের একজন গার্ডিয়ানের সুরক্ষার ছায়ায় সুরক্ষিত।

    যে সকল ক্ষুদ্রঋণ প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের সাথে গার্ডিয়ানের ক্ষুদ্রবীমা চুক্তি আছে, সে সকল প্রতিষ্ঠানের ক্ষুদ্রঋণ গ্রাহকেরা ঋণ গ্রহণের সময়ে সাশ্রয়ী প্রিমিয়ামের বিনিময়ে গার্ডিয়ানের ক্ষুদ্রবীমা গ্রহণ করতে পারেন। এ বীমার মূল বৈশিষ্ট্য হলো বীমার মেয়াদের ভিতরে যদি ঋণগ্রহীতার মৃত্যু হয় তাহলে গার্ডিয়ান তার নিয়মিত ঋণস্থিতি/অবশিষ্ট ঋণ সংশ্লিষ্ট ঋণ প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানকে পরিশোধ করে এবং বীমাগ্রহীতা/তার পরিবার ঋণ মুক্ত হয়।

    গার্ডিয়ান লাইফ ক্ষুদ্র বীমার বৈশিষ্ট্য

    • দরিদ্র জনগোষ্ঠীর সাধ্যের নাগালে সাশ্রয়ী প্রিমিয়াম দিয়ে বীমা সেবা।
    • চাহিদার ভিত্তিতে বীমাকল্পে বিভিন্ন সুবিধা অন্তর্ভুক্ত করার সুযোগ (যেমন ইনস্ট্যান্ট ক্যাশ বেনিফিট, সেকেন্ডারী বীমাগ্রহীতা অন্তর্ভুক্তকরণের সুবিধা)।
    • ঝামেলামুক্ত বীমা ক্রয়।
    • দ্রুততার সাথে দাবি নিষ্পত্তিকরণ।
    • ঋণ প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের জন্য খেলাপি ঋণের আশংকা হ্রাস।

    বর্তমানে চালুকৃত বীমাকল্পসমূহ

    ক্ষুদ্র ঋণ নিরাপত্তা বীমা

    এই সেবাটি এনজিও, ব্যাংক, এমএফআই, নন-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠান (এনবিএফআই) এর ক্ষুদ্র ঋণগ্রহীতাদের মৃত্যুজনিত সম্ভাব্য আর্থিক ঝুঁকি থেকে রক্ষা করে। এই বীমা গ্রহণের মাধ্যমে ঋণগ্রহীতা অথবা তার পরিবার ঋণমুক্ত হয় এবং ঋণপ্রদানকারী প্রতিষ্ঠানও তার প্রদত্ত ঋণ খেলাপী হবার ঝুঁকি থেকে মুক্ত হতে পারে। এই বীমা কল্পে একজন সেকেন্ডারী বীমাগ্রহীতা অন্তর্ভুক্তিকরণের সুবিধা আছে যাতে বীমাকৃত ঋণগ্রহীতা বা সেকেন্ডারী বীমাগ্রহীতা যে কোনো একজনের মৃত্যুতে বীমা দাবি পাওয়া যায়।

    উপকারিতা

    • ক্ষুদ্র ঋণ নিরাপত্তা বীমাকারী ব্যক্তির মৃত্যুর কারণে নিয়মিত ঋণস্থিতি/অবশিষ্ট ঋণ মওকুফ করা হয়।
    • ঋণগ্রহীতা বা সেকেন্ডারি বীমাগ্রহীতার মৃত্যুতে একটি নির্দিষ্ট পরিমান নগদ অর্থ অন্তোষ্টিক্রিয়া/দাফন কাফন এর জন্য প্রদান করা হয়।

    সঞ্চয় নিরপত্তা বীমা

    এই সেবাটি এনজিও, ব্যাংক, এমএফআই, নন-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠান (এনবিএফআই) এর ক্ষুদ্র সঞ্চয়কারীদের মৃত্যুজনিত সম্ভাব্য আর্থিক ঝুঁকি থেকে রক্ষা করে।

    উপকারিতা

    • লাইফ কভারেজ : সঞ্চয়ী নিরপত্তা বীমাগ্রহীতার মৃত্যুর কারণে সঞ্চয় প্রকল্পের পরিপক্কতার সমপরিমাণ টাকা নমিনিকে প্রদান করা হয়।

    গার্ডিয়ান ব্র্যাক বীমা (জিবিবি)

    গার্ডিয়ান লাইফ ইন্সুরেন্স বিশ্বের সর্ববৃহৎ এনজিও ব্র্যাকের সাধে যৌথ ব্যবস্থাপনায় ব্র্যাকের ক্ষুদ্রঋণ গ্রহীতাদের জন্য "গার্ডিয়ান ব্র্যাক বীমা (জিবিবি)" নামক একটি বিশেষায়িত বীমা পরিকল্প পরিচালনা করে আসছে। ব্র্যাকের ক্ষুদ্রঋণ গ্রহীতাগণ ঋণ গ্রহণকালে অতি অল্প প্রিমিয়ামে এই বীমা করতে পারেন। বীমা মেয়াদের ভিতর যদি ঋণগ্রহীতার মৃত্যু হয় তাহলে গার্ডিয়ান ঋণ গ্রহীতার নিয়মিত ঋণস্থিতি/অবশিষ্ট ঋণের সমপরিমাণ অর্থ ব্র্যাককে পরিশোধ করে এবং বীমাগ্রহীতা/তার পরিবার ঋণ মুক্ত হয়। এ বীমার আওতায় বীমাগ্রহীতা চাইলে একজন সেকেন্ডারী বীমাগ্রহীতা অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন। এক্ষেত্রে বীমাগ্রহীতা অথবা সেকেন্ডারী বীমাগ্রহীতা যেকোনো একজনের মৃত্যুতে গার্ডিয়ান ব্র্যাকের ঋণ গ্রহীতার নিয়মিত ঋণস্থিতি/অবশিষ্ট ঋণ পরিশোধ করে এবং ঋণগ্রহীতা অথবা তার পরিবার ঋণ মুক্ত হয়। এছাড়াও বীমাগ্রহীতা অথবা সেকেন্ডারী বীমাগ্রহীতার মৃত্যুতে গার্ডিয়ান মৃত ব্যক্তির পরিবারকে একটি নির্দিষ্ট অংক অন্তোষ্টিক্রিয়া/দাফন কাফনের খরচ বাবদ জন্য প্রদান করে।

    গার্ডিয়ান ব্র্যাক বীমা প্রকল্পটি ২০১৫ সালে ২০ টি শাখা নিয়ে পাইলটিং করা হয়। এই পাইলটিং এর ফলাফল সন্তোষজনক হওয়ায় ২০১৬ সালে এই প্রকল্পের আওতায় শাখার সংখ্যা হয় ৬৫০টিতে উন্নীত করা হয়। বর্তমানে গার্ডিয়ান-ব্র্যাক বীমা প্রকল্পে মোট ২৫৩০টি শাখা রয়েছে, যা বিশ্বের সর্ব বৃহৎ ক্ষুদ্রবীমা প্রকল্প। এ প্রকল্পের আওতায় গার্ডিয়ান লাইফ তাদের সার্ভিস এবং কাজের মান বজায় রেখে দুটি ভাগে কাজ করে চলেছে যার মধ্যে একটি অপারেশন পরিচালনা এবং অপরটি দক্ষভাবে দাবী প্রক্রিয়াকরণ। দাবী প্রক্রিয়াটিকে আরও দ্রুত ও দক্ষতার সাথে পরিচালনার জন্য গার্ডিয়ান লাইফ অনলাইন ওয়েব পোর্টালের মাধ্যমেও বীমা দাবি গ্রহণ করে।

    গার্ডিয়ান-ব্র্যাক বীমা (জিবিবি) প্রকল্পের জন্য গার্ডিয়ান লাইফ "বছরের উদ্ভাবনী বীমা পণ্য ২০১৭" ক্যাটেগরিতে "ইন্স্যুরেন্স এশিয়া অ্যাওয়ার্ডস ২০১৭" অর্জন করেছে। এখানে উল্লেখ্য যে, বর্তমানে এক কোটিরও বেশি জীবন গার্ডিয়ান-ব্র্যাক বীমা প্রকল্পের আওতায় সুরক্ষিত আছে।

    ব্যাংক এশিয়া গার্ডিয়ান বীমা (বিএজি)

    ২০১৯ সালে, ব্যাংক এশিয়া ও গার্ডিয়ান লাইফ যৌথভাবে ব্যাংক এশিয়ার এজেন্ট ব্যাংকিং চ্যানেলের অধীনে ক্ষুদ্র ঋণগ্রহীতাদের জন্য ঋণ সুরক্ষা বীমা চালু করেছে। এই বীমা পরিষেবার আওতায় বীমাকৃত ঋণধারীর মৃত্যুর কারণে সমস্ত বকেয়া ঋণ গার্ডিয়ান পরিশোধ করে। এতে করে ঋণধারী রিন্ মুক্ত হয় এবং ব্যাংকও প্রদত্ত ঋণ খেলাপি হওয়ার আশংকা থেকে মুক্ত হয়।

    গার্ডিয়ান লাইফ ক্ষুদ্র-বীমার প্রভাব

    • ঋণধারীদের দায়বদ্ধতা সুরক্ষা।
    • অংশীদারদের আমানত সুরক্ষা, অর্থাৎ এমএফআই, ব্যাংক এবং নন-ব্যাংক আর্থিক (এনবিএফ)।
    • সমস্ত অংশীদারদের সম্পদ সুরক্ষা।
    • একটি সুরক্ষিত আর্থিক কর্মসংস্থান।
    • সুরক্ষিত আর্থ-অর্থনীতি।

    গার্ডিয়ান ব্র্যাক বীমা (জিবিবি) ক্ষুদ্র বীমা

    জিএলআইএল সর্বদা স্থিতাবস্থাটিকে চ্যালেঞ্জ জানাতে এবং নতুন ব্যবসায়কি মডেলগুলি প্রবর্তন করার চেষ্টা করে। শীর্ষস্থানীয় শিল্পের দৃষ্টান্ত হিসেবে জিএলআইএল পরিচিত। ক্ষুদ্র বীমার মাধ্যমে "সেরা অন্তর্ভুক্তি" এবং "আর্থিক অন্তর্ভুক্তি" এর পথিকৃৎ হওয়ায় জিএলআইএল ইতিমধ্যে দেশের একটি সুপরিচিত জীবন বীমা ব্র্যান্ডে পরিণত হয়েছে। এটি বাংলাদেশের দ্রুত বর্ধনশীল জীবন বীমা সংস্থা, এটির ক্ষুদ্র বীমার আওতায় ৫ মিলিয়নের বেশি জীবনকে আচ্ছাদন করে।

    আমরা জুন ’১৫ এ ব্র্যাকের সাথে গার্ডিয়ান ব্র্যাক বীমা (জিবিবি) এর পাইলটিং প্রকল্পটি শুরু হয়েছে (ব্র্যাকের ৯২ টি শাখায় বিমান চালনা করছি)। আমাদের ১.৫ বছরের 'পাইলট প্রকল্পটির সফল সমাপ্তির পরে, জানুয়ারী'২০১৭-তে, গার্ডিয়ান লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড, ব্র্যাকের সাথে অংশীদারিত্ব করে, বাজারে যোগ দিয়েছে যার ঋণ নিরাপত্তা সেবার মাধ্যমে আরো ৫০ মিলিয়ন গ্রাহককে সেবা প্রদান করছে।

    ব্র্যাক এবং গার্ডিয়ান লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেডের পরিষেবা আইনী চুক্তি (এসএলএ) স্বাক্ষর অনুষ্ঠানটি ১২ জানুয়ারী ২০১৭ এ ব্র্যাক সেন্টারে অনুষ্ঠিত হয়েছিল। ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারপারসন স্যার ফজলে হাসান আবেদ, নির্বাহী পরিচালক ডাঃ মোহাম্মদ মুসা, সিনিয়র ডিরেক্টর, আসিফ সালেহ, ক্ষুদ্রঋণ ও অতি দুর্বল প্রোগ্রামের পরিচালক শামেরান আবেদ, অনুষ্ঠানে গার্ডিয়ান লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এম এম মনিরুল আলম এবং স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক উপস্থিত ছিলেন।

    বৈশিষ্ট্য এবং সুবিধা সমূহ -

    গ্রাহকদের ৩ উপায়ে সহায়তা করা হয়ে থাকে -

    ১। ঋণগ্রহীতার মৃত্যুতে তাঁর মূল বকেয়া ঋণের স্থিতি নির্ধারিত কভারেজ সীমার মধ্যে মওকুফ করা হয়।

    ২। ঋণগ্রহীতা / ২য় বীমাপ্রাপ্ত মৃত্যুর পরিস্থিতিতে স্বল্প ঋণের পরিমাণ ধারকগণের জন্য ১০,০০০ টাকা বা নিম্ন ঋণের পরিমাণ ধারকগণের জন্য ২০,০০০ টাকা প্রদান করা হয়। যদি একই পরিবার থেকে দু'জন লোককে বীমা প্রদান করা হয় এবং তারা উভয় বীমা নীতির আওতায় আসে তবে উভয় ঋণের জন্য মূল বকেয়া ঋণের স্থিতি মওকুফ করা হবে তবে মৃত্যুজনিত আর্থিক বেনিফিট কেবলমাত্র একটি পলিসির জন্য প্রদান করা হয়।

    ৩। ব্র্যাকের সাথে গ্রাহকদের পরিবারকে পুরো সঞ্চয় সুবিধা প্রদান করা হয়। এবং এই সমস্ত সুবিধা একটি নামমাত্র, এক সময় (প্রতি ঋণ) প্রিমিয়াম এ প্রদান করা হয়।

    নিবন্ধন করার নিয়ম -

    জিবিবি প্রকল্পের আওতায় যেভাবে নাম নথিভুক্ত করবেন -

    ১। গ্রাহকরা নিবন্ধিত হওয়ার জন্য আবেদন ফর্মটি পূরণ করুন। (একটি বীমা অংশ নথিভুক্ত করতে ঋণের মূল আবেদন পত্রের সাথে সংযুক্ত করা হবে)

    ২। ফিল্ড অফিসাররা গ্রাহকদের আবেদন ফর্মটি পূরণ করতে সহায়তা করে।

    ৩। সম্মানিত অঞ্চল সুপারভাইজাররা আবেদন ফর্মের সঠিকতা পরীক্ষা করে দেখেন।

    ৪। নিজ নিজ হিসাব কর্মকর্তা ব্র্যাক এর অফিসিয়াল সফটওয়্যার গ্রাহকদের দেয়া ইনপুট থেকে প্রিমিয়াম পরিমাণ সংগ্রহ।

    ৫। সম্মানজনক অ্যাকাউন্ট অফিসাররা জিএলআইএল এর ওয়েব-পোর্টালে দিনের শেষ তালিকাভুক্তির একটি ফাইল রফতানি করে। অথবা, ব্র্যাক-প্রধান কার্যালয়ে মাসিক ভিত্তিতে জিএলআইএল- প্রধান কার্যালয়ের সাথে একটি গ্রাহকের তালিকা শেয়ার করে দেয়।

    ৬। মাস শেষ হওয়ার পরে, ব্র্যাক সমস্ত শাখার মোট সংগ্রহ প্রিমিয়াম জিএলআইএল প্রদান করে।

    দাবি জমাদানের নিয়ম-

    ১। নমিনি শাখা অফিসকে মৃত্যুর খবর দেন।

    ২। ফিল্ড অফিসাররা দাবি নিষ্পত্তির জন্য প্রয়োাজনীয় সমস্ত নথি সংগ্রহ করতে মনোনীতকে সহায়তা করবেন। দাবি-প্রক্রিয়াজাতকরণ সম্পর্কে আরও ভালো ধারণা পেতে ব্র্যাকের ফিল্ড অফিসারের সাথে জিএলআইএল দ্বারা একটি চেকলিস্ট সরবরাহ করা হয়েছে।

    ৩। মনোনয়নপ্রাপ্তরা "কুরিয়ার / * ওয়েব-পোর্টাল" দ্বারা সমস্ত নথি গার্ডিয়ানের প্রধান কার্যালয়ে জমা দেন।

    ৪। জিএলআইএল এর দাবি বিভাগ সমস্ত দস্তাবেজ চেক করে এবং দস্তাবেজ সন্তোষজনক হলে ০৫ দিনের মধ্যে তার সিদ্ধান্ত দেয়।

    ৫। জিএলআইএল প্রধান কার্যালয় দাবি সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত সম্পর্কে সম্মানিত অঞ্চল সুপারভাইজারদের একটি ইমেল এবং মোবাইল এসএমএস পাঠায়।

    ৬। মাস শেষ হওয়ার পরে, নিষ্পত্তি হওয়া সমস্ত দাবির জন্য ব্র্যাককে অর্থ দেওয়া হয়। প্রদত্ত দাবির একটি তালিকা ব্র্যাকের সাথে আদান প্রদান করা হয়।

    ব্র্যাককে দ্রুত সার্ভিস দেওয়ার জন্য, গার্ডিয়ান আইটি টিম তাদের ওয়েব পোর্টাল তৈরি করেছে যেখানে ব্র্যাক এখন তাদের স্মার্ট ফোন / ট্যাবের মাধ্যমে ছবি তোলার মাধ্যমে দাবির দলিলগুলো প্রেরণ করতে সক্ষম।

    জিবিবি এর সামাজিক প্রভাব -

    ক্ষুদ্র বীমার সাথে সংযুক্ত সামাজিক ব্যবসা একটি সুরক্ষিত ব্যবসায়কে নিশ্চিত করে।

    • বীমা কভারেজ ১ম দিন থেকে ঋণের পোর্টফোলিও সুরক্ষিত করে।
    • সংস্থাটি বীমাকারীর কাছ থেকে লাভের আকারে একটি অতিরিক্ত আয় উপভোগ করতে পারে।
    • নিহতের পরিবার থেকে ফেরতযোগ্য বকেয়া ঋণের পরিমাণ সংগ্রহের কঠিন কাজটি বাতিল হয়ে যাবে।
    • শাখা / পরিষেবা ইউনিটের উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি করা।
    • নিয়মিত ঋণ সেবাগুলি আরও আকর্ষণীয় হবে।
    • মৃত পরিবারের জানাজার ব্যয় পরিচালনা করার জন্য কোন প্রতিকূলতার থাকবে না।

    জিবিবির কৃতিত্ব -

    • এটা গার্ডিয়ান-ব্র্যাক বীমা, প্রজেক্ট (জিবিবি) জন্য বীমা এশিয়া পুরস্কার ২০১৭ এ “বছরের-২০১৭ এর উদ্ভাবনী বীমা পণ্য” পুরস্কারের বিজয়ী।
    • ক্ষুদ্রঋণ প্রকল্পের অগ্রণী: গার্ডিয়ান-ব্র্যাক বিমা।
    • বাংলাদেশের প্রতি ১০০ জনের মধ্যে ৪ জন জিএলআইএল এর এম আই কভারেজের অধীনে।
    • ২৪ ঘন্টার মধ্যে মৃত পরিবারকে ১০০০০ / বিডিটি ২০০০০ আর্থিক সুবিধা প্রদান করা।
    • সমস্ত কাগজপত্র যদি সঠিক হয় তবে ০৩ কার্যদিবসের মধ্যে জিবিবির দাবি নিষ্পত্তি করতে সক্ষম।
    • ০৫ কার্যদিবসের মধ্যে দাবির পরিমাণ পরিশোধ করতে সক্ষম।
    • ডিজিটাল দাবি প্রেরণ - ব্র্যাকের ফিল্ড কর্মীরা বর্তমানে তাদের স্মার্ট ফোন / ট্যাবের মাধ্যমে ছবি ধারণের মাধ্যমে দাবির কগজপত্রগুলি প্রেরণ করতে সক্ষম।

    অন্যান্য কাজ -

    আমরা এনজিও'র, বাণিজ্যিক ব্যাংক এবং এনবিএফআই ইত্যাদির মতো নতুন সম্ভাব্য গ্রাহকদের সন্ধানের জন্য দীর্ঘ মেয়াদী কাজ করছি যাতে আপনাদের প্রয়োজনীয়তা অনুসারে বিভিন্ন ধরণের ক্ষুদ্রবীমা পণ্য সরবরাহ করতে সক্ষম হই। আপনি যদি আমাদের সাথে জড়িত হতে আগ্রহী হন তবে দয়া করে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন (ক্ষুদ্র বীমা দল- গার্ডিয়ান লাইফ এর প্রধান কার্যালয়)।

    শর্তাবলী-

    ১। সমস্ত ব্র্যাক মাইক্রোফিনান্স বর্তমান গ্রহীতা 

    (ক) প্রথম বীমাকৃত হিসেবে গ্রহীতা এবং (খ) মূলত দ্বৈত পলিসির জন্য দ্বিতীয় বীমাকৃত একই পরিবার থেকে তার স্ত্রী / সন্তানরা বীমা কভারেজ পেতে পারে এবং স্বামী / সন্তানের অনুপস্থিতিতে বাবা-মা হতে পারে দ্বিতীয় বীমা হিসেবে আচ্ছাদিত। গৃহীত শিশুদের জন্য, প্রস্তাবিত বীমাকারীদের নাম অবশ্যই আবেদন ফরমের মধ্যে উল্লেখ করতে হবে। প্রথম এবং দ্বিতীয় উভয় বীমাগ্রহীতাকে শারীরিকভাবে সুস্থ এবং সক্রিয় থাকতে হবে।

    ২। উভয় বীমাকৃত ব্যক্তির বয়স সীমা ১৮ থেকে ৬৫-এন হওয়া উচিত (এন অর্থ ঋণের সময়কাল)

    ৩। ক্যান্সার, পক্ষাঘাত, কিডনি বা লিভার এর রোগ (যার কারণে কিডনি বা লিভার ব্যর্থ হতে পারে), স্ট্রোক বা বড় হার্ট অ্যাটাকের ইতিহাস বা বীমাগ্রহীতার ১৫ কেজি বা তার বেশি ওজন হ্রাসের ইতিহাস বা দ্বিতীয় বীমাকৃত ব্যক্তির মতো প্রাক-বিদ্যমান স্বাস্থ্যে দুর্বলতা ১২ মাস ধরে চললে এই কভারেজের বাইরে থাকুন।

    ৪। কভারেজের সীমা ১০ লক্ষ টাকার বেশি হওয়া উচিত নয়।

    যোগাযোগ করুন